নাসার প্রতিযোগীতায় বিশ্বচ্যাম্পিয়ান শাবি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মাহাকাশ সংস্থা ‘ন্যাশনাল অ্যারোনেটিক্স এ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন’ (নাসা) এর প্রতিযোগীতায় বিশ্বচ্যাম্পিয়ান হয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিম ‘অলিক’।

গত ১৯, ২০ ও ২১ অক্টোবর বাংলাদেশ ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে এ প্রতিযোগীতার আঞ্চলিক পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। যার ফাইনাল ঘোষণা করা হয় শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ২টায়।

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ অরগানাইজিং টিম এবং বেসিক এর উদ্যোগে প্রায় ২ হাজারেরও বেশি প্রকল্পের মধ্যে ৪০ টি আঞ্চলিক পর্যায়ে অংশগ্রহনের সুযোগ পায়। সেখান থেকে ৮টি প্রকল্পকে বেছে নেয়া হয়। যেখানে নাসা স্পেস এ্যাপস চ্যালেঞ্জের ফাইনাল প্রতিযোগিতায় মোট ছয়টি ক্যাটাগরির মধ্যে বেস্ট ইউজ অফ ডেটা ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ান হয় শাবির ‘টিম অলিক’।

টিম অলিকের সদস্যরা হলেন জিইই বিভাগের ২০১৩-২০১৪ সেশনের শিক্ষার্থী আবু সাবিক মাহদী, জিইই বিভাগের ২০১৩-২০১৪ সেশনের শিক্ষার্থী,কাজী মঈনুল ইসলাম, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৩-২০১৪ সেশনের এস এম রাফি আদনান, জিইই বিভাগের ২০১৫ -২০১৬ সেশনের শিক্ষার্থী সাব্বির হাসান। আর টিম মেন্টর হিসেবে ছিলেন কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী।

আবিষ্কৃত অ্যাপস সম্পর্কে টিম অলিকের দলপতি আবু সাদিক মাহদী বলেন, আমাদের প্রকল্পের নাম ছিলো ‘লুনার ভিআর’ যা একটি ভার্চুয়াল রিয়েলিটি অ্যাপ। নাসা প্রদত্ত বিভিন্ন ডাটা ব্যবহার করে এই অ্যাপটি তৈরি করা হয়েছে। অ্যাপটির মাধ্যমে নাসা আপোলো ১১ মিশন এর ল্যান্ডিং এরিয়া ভ্রমণ, চাঁদ থেকে সূর্যগ্রহণ দেখা এবং চাঁদকে একটি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ভার্চুয়ালভাবে আবর্তন করা যাবে।

তার টিমের পরবর্তী লক্ষ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি, গেম এবং ভিস্যুয়াল ইন্টারএক্টিভ নিয়ে ভবিষ্যতে আমাদের কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

তবে সরকার এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে সহায়তা চেয়ে এ দলপতি বলেন, নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ এর অর্গানিজিং টিম এর তথ্য অনুযায়ী তারা আমাদের কোনো খরচ প্রদান করবে না শুধু নাসা পরিদর্শন করার আমন্ত্রন পাঠবে। তবে আমরা আশাবাদী সরকার, বেসিস এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ বিষয়ে আমাদের সহযোগিতা করবে।

এ বিষয়ে শাবি ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমরা এ সাফল্যে খুবই গর্বিত। আর এ ধরনের কাজে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সবসময় ‘টিম অলিকের’ পাশে আছে।

খবরটি পড়া হয়েছে :7বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *