যেখানে গেইলের চেয়ে এগিয়ে তামিম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফাইনাল হয়েছে ৬টি। এই ছয় ফাইনালে সবেধন নীলমণি হয়ে এতদিন জ্বলজ্বল করছিল টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সাইনবোর্ড ক্যারিবিয়ান হিটার ক্রিস গেইলের সেঞ্চুরি। যা ছিল গত আসরের ফাইনালে।

এবারের ষষ্ঠ আসরে ফাইনালে সেঞ্চুরি করে ক্রিস গেইলের পাশে গিয়ে দাঁড়ালেন বাংলাদেশি ওপেনার তামিম ইকবাল।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের এই ওপেনার ফাইনালে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে করেন ১৪১ রান; বল খরচ করেন মাত্র ৬১টি। ক্রিস গেইল গত আসরের ফাইনালে র্ংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছিলেন। ৬৯ বলে খেলেন তিনি ১৪৬ রানের ইনিংস।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফাইনালের ইতিহাসে ওটাই ছিল একমাত্র সেঞ্চুরি। শুক্রবার চলতি আসরের ফাইনালে সেই ঢাকার বিপক্ষে সেঞ্চুরি করলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ওপেনার তামিম ইকবাল।

গত আসরের ফাইনালে গেইল ১৪৬ রান করেছিলেন ২১১.৫৯ স্ট্রাইক রেটে। আর এবারের আসরে তামিম তার ইনিংস খেললেন ২৩১.১৪ স্ট্রাইক রেটে। রানের সংখ্যায় পিছিয়ে থাকলেও স্ট্রাইক রেটে হিসেবে গেইলের চেয়ে এগিয়ে তামিম।

অথচ ইনিংসের শুরুটা কি শান্ত মেজাজেই শুরু করেছিলেন তামিম। প্রথম ১০ বলে মাত্র ৪ রান। ১১তম বলে সুনিল নারিনের বলে ছক্কা হাঁকিয়ে শুরু করলেন। এরপর আর থামেননি। ৩১ বলে তুলে নিলেন নিজের ফিফটি। তবে তার ধ্বংসাত্মক রূপটা এরপরেই দেখল ঢাকা। পরের পঞ্চাশ করতে বল খেলেছেন মাত্র ১৯টি। ৫০ বলে আসে সেঞ্চুরি। আন্দ্রে রাসেলের বলে চার মেরেই তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছান এ ড্যাশিং ব্যাটসম্যান।

দলের ইনিংসকে লম্বা করে শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করেছেন তামিম। খেলেছেন হার না মানা ১৪১ রানের অনবদ্য এক ইনিংস। মাত্র ৬১ বলের ইনিংসটি ১০টি চার ও ১১টি ছক্কায় সাজিয়েছেন তামিম। যা বিপিএল ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি। গত ফাইনালে খেলা গেইলের সেই সেঞ্চুরিটিই সর্বোচ্চ। আর চলতি আসরে এটা ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। অথচ আগের পাঁচ আসরে সেঞ্চুরি হয়েছিল ১২টি।

তামিমের হাতে মার বেশি খেলেন রুবেল হোসেনই। তার করা ১৫তম ওভারের পাঁচ বল খেলে ২টি করে চার ও ছক্কায় নেন ২২ রান। ফলে প্রথম দুই ওভারে ১৪ রান দেওয়া রুবেল পরের দুই ওভারে দেন ৩৪ রান। ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেলও বাদ যাননি। তার করা ১৭তম ওভারেও ২টি করে চার ছক্কায় ২২ নেন তামিম। প্রথম দুই ওভারে মাত্র ৫ রান দেওয়া এ ক্যারিবিয়ান পরের দুই ওভারে দেন ৩২ রান।

দুর্দান্ত এ সেঞ্চুরিতে নতুন মাইলফলকেও পৌঁছেছেন তামিম। বিপিএলে সর্বোচ্চ রান এখন তার দখলে। মুশফিকুর রহিমকে টপকে যান তিনি। ৫৮ ম্যাচে এখন তার রান ১৮২৫। ৬৭ ম্যাচে মুশফিকের সংগ্রহ ১৭৮৩ রান। এমনকি চলতি আসরের সর্বোচ্চ সংগ্রহতেও মুশফিককে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছেন তামিম। ১৪ ম্যাচে তামিমের সংগ্রহ ৪৬৭ রান। মুশফিক করেছিলেন ১৩ ম্যাচে ৪২৬ রান।

তামিমের এ বিধ্বংসী রূপেই ঢাকার বিপক্ষে বড় সংগ্রহ পেয়েছে কুমিল্লা। নির্ধারিত ২০ ওভারে তাদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৯৯ রান। জবাবে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ঢাকার সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৮২ রান। ১৭ রানে ম্যাচ জিতে এবারের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

খবরটি পড়া হয়েছে :7বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *