হবিগঞ্জে ৪টি আসনে কোন প্রার্থী কত ভোট পেলেন?

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের ৪টি আসনে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করেছে। শুধু জয়ই না, বিশাল ব্যবধানে জয়লাভ করেছেন আওয়ামী লীগের চার কান্ডারি। একদিকে যেমন বিশাল ব্যবধানে জয়লাভ করেছে আওয়ামী লীগ, অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বি সর্বনিম্ন ভোট পাওয়ার ইতিহাসও সৃষ্টি হলো হবিগঞ্জে।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে ৭২ হাজার ৯শ’ ৯১ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শাহ্ নেওয়াজ মিলাদ গাজী। তাঁর প্রাপ্ত ভাট ১ লাখ ৫৮ হাজার ১শ’ ৮৮। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় ঐক্যফন্টের প্রার্থী সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ্ এ এম এস কিবরিয়ার পুত্র ড. রেজা কিবরিয়া পেয়েছেন ৮৫ হাজার ১শ’ ৯৭ ভোট। এ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিক লাঙল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮শ’ ৩৮ ভোট, ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আবু অঅনিফা আহমেদ হোসেন হাতপাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৫শ’ ৬১ ভোট, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ-এর প্রার্থী মই প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩শ’ ৮ ভোট, বাংলাদেশ ইসলামি ফন্টের প্রার্থী জুবায়ের আহমেদ মোমবাতি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২শ’ ৪০ ভোট, কৃষক শ্রমীক জনতালীগের প্রার্থী মো. নূরূল হক গামছা প্রতীক নিয়ে পেয়ে ১শ’ ১০ ভোট। আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৯শ’ ৩৯ জন। ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২ লাখ ৫৬ হাজার ১শ’ ৫৫ জন। এর মধ্যে বাতিল হয়েছে ৩ হাজার ২শ’ ৬৬ ভোট।

হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনে ১ লাখ ১১ হাজার ৭শ’ ৫৬ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাবেক এমপি এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১ লাখ ৭১ হাজার ৪শ’ ৮০। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় ঐক্যফন্টের প্রার্থী খেলাফত মজলিশের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মাওলানা আব্দুল বাছিত আজাদ পেয়েছেন ৫৯ হাজার ৭শ’ ২৪ ভোট। এছাড়া জাতীয় পার্টির প্রার্থী শংকর পাল লাঙল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ১শ’ ৮৭ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী আফসার আহমেদ সিংহ প্রর্তীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৪শ’ ১৩ ভোট, ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আবুল কামাল মসউদ হাসান হাতপাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ১শ’ ৮১ ভোট, কৃষক শ্রমীক জনতালীগের প্রার্থী এডভোকেট দেবমোহন দেবনাথ গামছা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪৭ ভোট ও ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির প্রার্থী পরেশ চন্দ্র দাস আম প্রর্তীক নিয়ে পেয়েছেন ২৮৯ ভোট। আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৬ হাজার ৯শ’ ৭৮ জন। এর মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২ লাখ ৪৬ হাজার ৫শ’ ৬৯ জন। ভোট বাতিল হয়েছে ২ হাজার ৪শ’ ৮৬টি।

হবিগঞ্জ-৩ (সদর-লাখাই-শায়েস্তাগঞ্জ) আসনে ১ লাখ ২৫ হাজার ৭শ’ ৯৫ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাবেক এমপি এডভোকেট মো. আবু জাহির। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১ লাখ ৯৩ হাজার ৮শ’ ৭৩। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় ঐক্যফন্টের প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে গউছ পেয়েছেন ৬৮ হাজার ৭৮ ভোট। এছাড়া বাংলাদেশ কমিউনিটি পার্টির প্রার্থী পীযূষ চক্রবর্তী কাস্তে প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪শ’ ৩৫ ভোট, বাংলাদেশ ইসলামি আন্দোলনের প্রার্থী মহিব উদ্দিন আহমদ সোহেল হাতপাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ২৬ ভোট, জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. আতিকুর রহমান আতিক লাঙল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪শ’ ৩৪ ভোট। তবে তিনি তার প্রার্থীতা প্রত্যার করে নিয়েছিলেন। আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ২৬ হাজার ৩শ’ ৬৩ জন। ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২ লাখ ৭১ হাজার ৯শ’ ২৩ জন। এর মধ্যে বাতিল হয়েছে ৫ হাজার ৭৭ ভোট।

হবিগঞ্জ-৪ (চুনারুঘাট-মাধবপুর) আসনে ২ লাখ ৬৪ হাজার ৮শ’ ২ ভোট বেশি পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাবেক এমপি এডভোকেট মাহবুব আলী। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৩ লাখ ৯ হাজার ৯শ’ ৫৩। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় ঐক্যফন্টের প্রার্থী খেলাফত মজলিশের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদির পেয়েছেন ৪৫ হাজার ১শ’ ৫১ ভোট। এ আসনে জাকের পার্টির প্রার্থী মো. আনছাবুল হক গোলাপ ফুল নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৩শ’ ১৯ ভোট, বাংরাদেশ ইসলামি ফ্রন্টের প্রার্থী মাওলানা মোহাম্মদ সোলাইমান খান রাব্বিনী মোমবাতি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ২৫ ভোট এবং ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী শেখ মো. সামছুল আলম হাতপাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৯শ’ ৯০ ভোট।

আসনটিতে মোট ভোটার ৪ লাখ ২৭ হাজার ২শ’৪৮ জন। ভোট প্রদান করেছেন ৩ লাখ ৬৬ হাজার ২শ’ ৫৯ ভোটার এর মধ্যে বাতিল হয়েছে ৪শ’ ১৮ ভোট।

খবরটি পড়া হয়েছে :23বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *