৩৩৩ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা

নিজস্ব প্রতিবেদক :: যাদের আত্মত্যাগে অর্জিত হয়েছে আমাদের মহান স্বাধীনতা, যাদের কল্যাণে আমরা পেয়েছি একটি স্বাধীন মানচিত্র, অর্জণ করেছি গৌরবৌজ্জল বিজয়-জাতির সেইসব শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সংবর্ধনা দিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)। রবিবার(১৬ ডিসেম্বর) বেলা ২টায় সিলেট সিটি কর্পোরেশন প্রাঙ্গনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মহানগরীর ৩৩৩ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে আর্থিক অনুদান ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এসময় তিনি বলেন, এই দেশের সূর্য সন্তানদের সংবর্ধনা জানাতে পেরে সিলেট সিটি সিটি কর্পোরেশন গর্বিত। তিনি জানান, স্বল্পসংখ্যক মুক্তিযোদ্ধা যারা এখনও বেঁচে আছেন তাদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযথ মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধাদের আর্থিক, সামাজিক ও মর্যাদা বৃদ্ধি করা হচ্ছে।

আরিফ আরও বলেন, আমার কাছে সবচাইতে শ্রদ্ধেয়জন হচ্ছেন-শ্রেষ্ঠ মানুষ হচ্ছেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। মুক্তিযোদ্ধাদের বিরল সম্মান কেউ কোনদিন ছিনিয়ে নিতে পারবে না। তাদের ঋন আমরা কোনদিন শোধ করতে পারব না। তিনি বলেন, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের পাশে সবসময় থাকবে সিলেট সিটি কর্পোরেশন।

অনুষ্ঠানে কাউন্সিলরদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন , কাউন্সিলর আজম খাঁন, ইলিয়াছুর রহমান, সংরক্ষিত কাউন্সিলর শাহানারা বেগম।

অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মহি উদ্দিন আহমদ, মানিক মিয়া,  ভবতোষ রায় বর্মন।

প্রতিবছর সম্মাননা অনুষ্ঠান আয়োজন করায় সিলেট সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, সিটি কর্পোরেশনে মুক্তিযোদ্ধারা যেকোন কাজে গেলে ভালো সেবা ও বিনয়ী আচরণ পেয়ে থাকেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের উঁচু মঞ্চে না বসে এবং মঞ্চ থেকে চেয়ার সরিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে এক কাতারে এসে বসার কারণে মুক্তিযোদ্ধারা সিটি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায় কর চৌধুরী। সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা চন্দন দাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আব্দুর রাজ্জাক, পবিত্র গীতাপাঠ করেন জ্যোতিষ চক্রবর্ত্তী। অনুষ্ঠানে সিলেটের সুধীজন, সিটি কর্পোরেশনের সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

খবরটি পড়া হয়েছে :23বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *