বিএনপি-জামায়াত আমলে পুকুরের মাছও নিরাপদ ছিল না: মোমেন

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, বিগত ১০ বছরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার এদেশকে একটি সম্ভাবনার দেশ হিসেবে গড়ে তুলেছে। তার আগে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার কেবল দুর্নাম কুড়িয়েছে, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, সন্ত্রাসী ও দখলদারিত্বের রাজনীতি কায়েম করেছে। তখন পুকুরের মাছও নিরাপদ ছিল না।

শনিবার সিলেট-১ আসনের বিভিন্ন স্থানে পৃথক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি। শনিবার সকাল ১০টায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে, ১১টায় বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সিলেট জেলা শাখার উদ্যোগে নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে, ১২টায় নগরীর একটি হোটেলে তরুণ পেশাজীবী সংগঠনের সাথে মতবিনিময়, বিকাল ৩টায় হাফিজ কমপ্লেক্সে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে মতবিনিময়, ৪টায় জেলা ও মহানগর তাতী লীগের উদ্যোগে নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে, সন্ধ্যা ৫টায় নগরীর একটি হোটেলে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের নেতৃবৃন্দের সাথে, সন্ধ্যা ৬টায় খাদিমনগর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম বশির মিয়ার বাড়িতে মতবিনিময় এবং রাত সাড়ে ৯টায় সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে রনজিত দত্তের বাড়িতে এবং নগরীর ৬নং ওয়ার্ডে শাহপরান প্রি-ক্যাডেট স্কুলে পৃথক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময়কালে তিনি আরও বলেন, জনকল্যাণের ব্রত নিয়ে রাজনীতিতে এসেছি। মানুষের সেবা এবং দেশের সেবায় নিজের বাকি জীবন বিলিয়ে দিতে চাই। 
ড. মোমেন বলেন, আওয়ামী লীগ দেশকে একটি সম্ভাবনার দেশ হিসেবে গড়ে তুলেছে। তার বিপক্ষে যারা আছেন তারা শুধু দুর্নাম করেছে, শান্তি ধ্বংস করেছে। বোমাবাজি ও সন্ত্রাসী রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। 

সাবেক এই কূটনীতিক বলেন, সন্ত্রাসী ও জঙ্গি দুর্নামের কারণে তখনকার সময়ে বাংলাদেশী প্রবাসীরাও চাকরীচ্যুত হয়েছেন। দেশের মানুষ সেই অবস্থায় ফিরে যেতে চায় না। আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস, দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন ও শান্তিময় দেশ প্রতিষ্ঠা করার দীপ্ত অঙ্গিকার নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বিগত ১০ বছরে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার দেশকে ডিজিটাল দেশ করেছে, লেখাপড়ার সুবিধা বৃদ্ধি করেছে। বছরের শুরুতে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের হাতে বিনামূল্যে বই তুলে দিচ্ছে। শিক্ষার হার বৃদ্ধি করার জন্য এবং মানুষকে লেখাপড়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য বিভিন্ন বৃত্তি চালু করেছে। বিগত সময়ে দেশের অসহায় মানুষের কল্যাণে শেখ হাসিনার গৃহীত নানা পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, গরিব-দুঃখী মানুষের আস্থার ঠিকানা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। সরকার প্রতিবন্ধী ভাতা, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা বৃদ্ধি করেছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেওয়া হয়েছে। দেশের দারিদ্রতা বিমোচনের জন্য সরকারি বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশে এখন দারিদ্রতার হার হ্রাস পেয়েছে। 

দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ও সমৃদ্ধির এই অভিযাত্রায় শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আগামী ৩০ ডিসেম্বর নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

এসব সভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আহাদ চৌধুরী, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, আব্দুল খালিক, এডভোকেট রফিকুল হক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় নির্বাহী সভাপতি এডভোকেট মশিউর মালেক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাশিদ হক কনিকা, সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তম কুমার, সিলেট জেলা সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মানিক মিয়া, সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস খান, বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও বিসিবির পরিচালক শফিউল আলম নাদেল, বার কাউন্সিলের সদস্য এডভোকেট এ এফ মো. রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নাজনীন হোসেন, প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা জেসমিন বোখারী, আওয়ামী লীগ নেতা ফেরদৌস চৌধুরী রুহেল, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সিলেট জেলা শাখার সহ-সভাপতি এটিএম বদরুল ইসলাম, হেলেন আহমদ, সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক ইমরান আহমদ, ব্যাংক কর্মকর্তা কামরানুল ইসলাম কামরান, মো. আব্দুর রশিদ খান রাশেদ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের এডভোকেট মো. আজিজুর রহমান, এডভোকেট মো. আনোয়ার হোসেন, এডভোকেট শফি আহমেদ, এডভোকেট আবুল খায়ের হেলাল আহমদ, এডভোকেট জিয়াউর রহিম মুর্শেদ, এডভোকেট জামিলুল হক, এডভোকেট বিপ্লব কান্তি দে মাধব, অধ্যাপক শফিকুর রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ শাহনূর, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট নূরে আলম সিরাজী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমীর উদ্দিন আহমদ, খাদিমনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মঈন মিয়া, মকবুল হোসেন, ফজলুর রহমান, রনজিত দত্ত, নগরীর ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, সাধারণ সম্পাদক জাহেদুল হোসেন মাসুদ, যুবলীগ নেতা হেলাল আহমদ, মো. খলিলুর রহমান, রহমত আলী, শাহজাহান কবির, কুতুব উদ্দিন, ফজলুর রহমান, রহমত আলী, তাঁতী লীগ সিলেট জেলা শাখার আহ্বায়ক আলমগীর হোসেন, মহানগর আহ্বায়ক নোমান আহমদ, সদস্য সচিব সুজন দেবনাথ, শেখ আবুল হাসনাত বুলবুল প্রমুখ।

খবরটি পড়া হয়েছে :7বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *