ইনাম আহমদকে মনোনয়ন দিতে মেয়র আরিফসহ ৫১ বিএনপি নেতার চিঠি

মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, প্রাইভেটাইজেশন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান, সাবেক সচিব ইনাম আহমদ চৌধুরীকে মনোনয়ন দিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বরাবরে আবেদন করেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সহ সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ৫১ নেতা।

শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় নগরীর একটি অভিজাত হোটেলে আয়োজিত এক সভা থেকে তারা দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বরাবরে এ চিঠি প্রেরণ করেন।

চিঠিতে বিএনপি নেতারা উল্লেখ করেন- দেশ ও জাতীর এই ক্রান্তিলগ্নে যখন আমাদের প্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে দিন কাটাচ্ছেন, যখন আমাদের অনুপ্রেরণার প্রতীক তারেক রহমান দেশের বাহিরে অবস্থান করতে বাধ্য হচ্ছেন, যখন আমাদের লক্ষ লক্ষ নেতা-কর্মী কারাগারে দিন কাটাচ্ছেন ঠিক সেই সময় আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিএনপি তথা সমগ্র জাতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায়।

সিলেটের বিএনপি নেতারা চিঠিতে উল্লেখ করেন- হযরত শাহজালাল (রহ.) ও হযরত শাহপরান (রহ.) এর স্মৃতিবিজড়িত ৩৬০ আউলিয়ার পুণ্যভূমি সিলেট-১ আসন সমগ্র বাংলাদেশের মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি আসন। প্রবাদ আছে সিলেট-১ আসন যার ক্ষমতা তার। তাই এই আসনে প্রতিটি নির্বাচনের সময় প্রতিটি দল অত্যন্ত বুঝেশুনে যারা ভবিষ্যতে দেশ চালাতে সক্ষম সেই ধরনের প্রার্থীকেই মনোনয়ন দিয়ে থাকেন। বিএনপি আওয়ামী লীগ থেকে সবসময়ই অত্যন্ত হেভিওয়েট প্রার্থী মনোনীত করা হয়। এবারও এই আসনে আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে জাতিসংঘের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি সাবেক সচিব, অর্থমন্ত্রীর ভাই আব্দুল মোমেনকে মনোনীত করেছে। অত্যন্ত রাজনীতি সচেতন, মুরব্বি অধ্যুষিত এ এলাকার জনগণ বরাবরই প্রার্থীকে যাচাইবাছাই করে থাকে। যদি সমানে সমান প্রার্থী না হয় তবে জনগণ আশাহত হয়। যা অতীতে অনেক নির্বাচনে পরিলক্ষিত হয়েছে।

তাই আমরা স্বাক্ষরকারীগণ যারা বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে বিএনপির প্রার্থীর বিজয় লাভে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন, আসন্ন নির্বাচনে আমাদের অভিমত হচ্ছে যদি এই আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, প্রাইভেটাইজেশন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান, সাবেক সচিব সিলেট অঞ্চলের মধ্যে অত্যন্ত সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান ইনাম আহমদ চৌধুরীকে মনোনয়ন দেয়া হলে এই আসনটি আপনাকে উপহার দেয়া সম্ভব হবে। কোন প্রার্থী সম্বন্ধে আমাদের ব্যক্তিগত কোন স্বার্থ-সংশ্লিষ্টতা নেই উল্লেখ করে এই নেতারা বলেন, শুধু সিলেটের জনগণের বিশ্বাস এবং সমর্থনের কথা চিন্তা করেই আমাদের এই প্রচেষ্টা। 

আবেদনের শেষে বলা হয়, মরহুম রিয়ার এডমিরাল মাহবুব আলী খানের স্মৃতিবিজড়িত এই সিলেট, যাকে সিলেটের জনগণ সম্মানের উচ্চশিখরে ধরে রেখেছে সেই সিলেটে ইনাম আহমদ চৌধুরীর মতো একজন যোগ্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হলে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের মতো আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও সর্বশক্তি দিয়ে সিলেটের জনগণ বিজয় ছিনিয়ে আনবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ছাড়াও এ আবেদনে স্বাক্ষরকারীরা করেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ ক্ষুদ্র ঋণ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, সিলেট মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী, এড. হাবিবুর রহমান হাবিব, ডা. মো. নাজমুল ইসলাম, সালেহ আহমদ খসরু, আব্দুল ফাত্তাহ বকশি, বাপ্পু সেন, জিয়াউল হক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামিম আহমদ সিদ্দিকী, মঈন উদ্দিন সোহেল, মো, ইমদাদ হোসেন চৌধুরী, ইসতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, মো. আব্দুল আজিজ, আতিকুর রহমান শাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক মিফতাহ সিদ্দিকী, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. খসরুজ্জামান, কাউন্সিলর এ বি এম জিল্লুর রহমান উজ্জল, জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ইলিয়াছ আলী, আব্দুর রহমান চৌধুরী, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও জেলা যুবদলের সভাপতি আব্দুল মন্নান, জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন লস্কর, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান আহমদ চৌধুরী, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শাকিল মোর্শেদ, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আফরোজ মিয়া, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ মামুন, জেলা যুবদলের সহ সভাপতি ইকবাল বাহার চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ছাদিকুর রহমান ছাদিক, জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক মো. সোরমান আলী, জেলা বিএনপি নেতা এম. মুজিবুর রহমান, মহানগর বিএনপির কোষাধ্যক্ষ আবুল ফজল, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সোহাদ রব চৌধুরী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক এনামুল কুদ্দুছ চৌধুরী, স্থানীয় সরকার সম্পাদক মো. কামাল মিয়া, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মন্নান পুতুল, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মো. ইউনুছ মিয়া, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক মো. মনিরুল ইসলাম, সহ পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মনজুর হোসেন মজনু, সহ যুব বিষয়ক সম্পাদক সোহেল মাহমুদ, সদস্য আব্দুস সামাদ তুহেল, মহানগর বিএনপি নেতা সোহেল আহমদসহ ৫১জন নেতা।

খবরটি পড়া হয়েছে :135বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *