ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩০০

ভয়াবহ ভূমিকম্প ও পরবর্তী সুনামিতে ইন্দোনেশিয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে এক হাজার ৩৪৭ জনে দাঁড়িয়েছে।

সর্বশেষ গতকাল মঙ্গলবার ধসে চাপা পড়া সেন্ট্রাল সুলাওয়েসি প্রদেশের সিজি বিরোমারু জেলার জোনুজ চার্চ ট্রেনিং সেন্টারের বাইবেল প্রশিক্ষণ শিবির থেকে ৩৪ শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ওই গির্জার ৮৬ শিক্ষার্থী নিখোঁজ ছিল। এখনো ৫২ জনের কোনো সন্ধান নেই।

ভূমিকম্পের পর আঘাত হানা সুনামির ঢেউ ছিল ছয় মিটার বা প্রায় সাড়ে ১৯ ফুট উঁচু। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভূপ্রাকৃতিকভাবে ইন্দোনেশিয়া এমন একটি দেশ, যেখানে ভূমিকম্প প্রায় প্রতিদিনই হয়। কিন্তু এবার ভূমিকম্প থেকে এত বড় ঢেউ সৃষ্টি হলো কেন, তা বিস্ময়ের।

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ সংস্থার মুখপাত্র সুতোপো পুরো নুগ্রহো জানান, পালু, ডঙ্গালা, সিগি ও পারিগি মুনতোঙ্গ শহরে নিহতের সংখ্যা বাড়ছে। এখন পর্যন্ত ৭৯৯ জন গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন। সিগি ও বালারোয়াতে এখনো অনেক মানুষ ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে আছেন। ফলে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

পরপর দুটি প্রাকৃতিক দুর্যোগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সুলাওয়েসি দ্বীপের পালু শহর। এখানে বসবাসকারী তিন লাখ ৮০ হাজার মানুষের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

গত শুক্রবার সেন্ট্রাল সুলাওয়েসি প্রদেশে ৭ দশমিক ৫ মাত্রার ভয়াবহ ভূমিকম্প আঘাত হানে।

এদিকে ভূমিকম্প-পরবর্তী আফটার শক ও ধ্বংসস্তূপের কারণে উদ্ধারকাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকর্মীরা। তাঁরা বিবিসিকে জানান, তাঁরা মৃতদেহ উদ্ধারে সাধ্যমতো কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু ভূমিধসে সৃষ্ট ধ্বংসস্তূপের কারণে উদ্ধারকাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

খবরটি পড়া হয়েছে :14বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *