ফাইনালে বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক,ঃ এই ম্যাচকে বলা হয়েছিলো অঘোষিত সেমিফাইনাল। জে জিতবে সেই ফাইনালে। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ শুরুর আগেই টাইগার শিবিরে দুঃসংবাদ। হাতে ইনজুরি মারাত্মক আকার ধারণ করায় দেশে ফিরে আসতে হয়েছে সাকিবকে। তামিম তো আগে ফিরে এসেছেন।

দলের দুই সেরা তারকা ছাড়াই বুধবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মাঠে নামে বাংলাদেশ। তাতে কী? জয়ের জন্য উন্মুক হয়ে থাকা দলকে হারায়কে। ৩৭ রানে হারিয়ে তাই আবারও এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ।

অথচ কী শোচনীয় ভাবেই না দিন শুরু করেছিলো বাংলাদেশ! এবারের এশিয়া কাপে বাংলাদেশের উত্থান-পতনের গল্পটা থাকল অলিখিত সেমিফাইনালেও। ব্যাটিংয়ে শুরুতে পতন, মাঝে আবার উত্থান, শেষে পতন। বোলিংয়ে শুরুতে উত্থান, মাঝে পতন, শেষে আবার উত্থান। 

শেষটা উত্থান দিয়ে হলো বলেই এশিয়া কাপে টানা দ্বিতীয়বার ফাইনালে উঠে গেল বাংলাদেশ। শুক্রবারের ফাইনালে প্রতিপক্ষ ভারত। গতবারের ফাইনালেও মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল। বাংলাদেশ তাই পেল প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ। সর্বশেষ চার এশিয়া কাপের তিনবারই ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টের ট্রফি অধরা থেকে যাওয়ার অসমাপ্ত গল্পটার বৃত্ত পূরণের সুযোগ আবার পেল মাশরাফির দল। দ্বিপাক্ষিক সিরিজ একাধিকবার জিতলেও ছেলেদের ক্রিকেটে এখনো তিন বা এর বেশি দল খেলেছে এমন টুর্নামেন্ট জিততে পারেনি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে ফাইনালে ওঠার গল্পটা প্রথমে লিখল একটি জুটি। ১২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলার পর চতুর্থ উইকেটে মুশফিক-মিঠুন ১৪৪ রান যোগ করলেন। এবারের আসরে উদ্বোধনী ম্যাচেও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশকে উদ্ধার করেছিল এই জুটি। কিন্তু সেদিনের মতো এবার শেষটা টেনে দিতে পারেননি মুশফিক। মুশফিক ৯৯ রানে ফিরেছেন এশিয়া কাপে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ১ রান দূরে থাকতে। মিঠুন করেছেন ৬০। দুজনের গড়ে দেওয়া ভিত্তিটা ভালোভাবে কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ। ৫ উইকেটে ১৯৭ তোলার পরও শেষটা ভালোভাবে টেনে দিতে পারেনি দল। মাহমুদউল্লাহ তবু ২৫ রানের ইনিংসে কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু শেষ ৫ ওভার বাংলাদেশের জন্য হতাশায় শেষ হয়। ১০ বলের মধ্যে শেষ তিন ব্যাটসম্যানের পতনের মধ্যে দিয়ে ইনিংসে ৭ বল বাকি থাকতেই ২৩৯ রানে অলআউট বাংলাদেশ। প্রত্যাশার চেয়ে অন্তত গোটা কুড়ি রান কম তো হয়েছেই।

উজ্জীবিত পাকিস্তানকে বাংলাদেশ আবারও মাটিতে টেনে আনে বোলিংয়ে। বিশেষ করে দুটি ক্যাচ দারুণভাবে ম্যাচে ফেরায় বাংলাদেশকে। এমনিতেই সাকিব আল হাসানকে ছাড়া খেলা মানে দুজন খেলোয়াড়কে হারানো। বাংলাদেশ খেলেছেও একজন বোলার কম নিয়ে। মাহমুদউল্লাহ-সৌম্যরা বোলিংয়ের শূন্যতা ভালোভাবেই পুষিয়ে দিয়েছেন। মাহমুদউল্লাহ তো পুরো ১০ওভার বোলিং করে মাত্র ৩৮ রান দিয়ে নিয়েছেন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উইকেটটি। ইনিংস উদ্বোধন করতে নেমে সাত নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়া ইমাম (৮৩) তাঁর শিকার। ৪৩ রানে ৪ উইকেট নিয়ে মোস্তাফিজ সবচেয়ে সফল। কিন্তু উইকেটসংখ্যায় পিছিয়ে থাকলেও ১০ ওভারে মাত্র ২৮ রানে ২ উইকেট নিয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন মিরাজ।

শুরুটাও করেছিলেন মিরাজ। পাকিস্তানের ইনিংসের পঞ্চম বলেই ফখর জামানকে রুবেলের ক্যাচ বানান। অবশ্য মিডঅনে রুবেল যেভাবে ক্যাচটা ধরেছেন, লেখা উচিত: ফখরকে মিরাজের উইকেট বানিয়েছেন রুবেল। পরের ওভারে বাবর আজমকে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন মোস্তাফিজ। ৩ বলের মধ্যে দুই ব্যাটসম্যান নেই পাকিস্তানের। দলের বিপদ দেখে ওপরে ব্যাট করতে নেমেছিলেন সরফরাজ। নিজের দ্বিতীয় ও ইনিংসের চতুর্থ ওভারে তাঁকে মুশফিকের ক্যাচ বানান মোস্তাফিজ। ১৮ রানে ৩ উইকেট নেই, বাংলাদেশের বিপক্ষে এতটা বাজে শুরু আগে কখনো করেনি পাকিস্তান।

সেখান থেকে ৬৭ রানের জুটি গড়ে ভয়ই দেখাচ্ছিলেন ইমাম ও শোয়েব মালিক। মিডউইকেটে বাজবাখি হয়ে ওঠা মাশরাফির দুর্দান্ত এক ক্যাচের শিকার হয়ে ফেরেন শোয়েব (৩০)। এবার বোলারের ভূমিকায় রুবেল। এশিয়া কাপে নিজের সেরা ছন্দে ছিলেন শোয়েব মালিক। তাঁকে ফেরানো বাংলাদেশের জন্য ছিল বড় সুখবর। কিছুক্ষণ পর সৌম্যের বাউন্সারে শাদাব উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলে ১০০ থেকে ৬ রান দূরে থাকতে পঞ্চম উইকেট হারায় পাকিস্তান।

তবু গলার কাঁটা হয়ে ছিলেন ইমাম-উল হক। ষষ্ঠ উইকেটে আসিফ আলীকে সঙ্গে নিয়ে ৭১ রানের জুটি গড়েন ইমাম। আসিফ ব্যক্তিগত ২২ রানে মোস্তাফিজের বলে সহজ ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন পেছনে। কিন্তু চোট নিয়ে বেরিয়ে যাওয়া মুশফিকের বদলে কিপিং করা লিটন এক হাতে ক্যাচটি ধরতে গিয়ে গ্লাভসবন্দী করতে পারেননি। সেই জুটিটাই ধীরে ধীরে বিপদের কারণ হয়ে দেখা দিচ্ছিল। লিটন পরে প্রায়শ্চিত্ত করেছেন দুটি দারুণ স্টাম্পিং করে। প্রথমে মিরাজের বলে আসিফকে (৩১), এরপর মাহমুদউল্লাহর বলে ইমামকেও (৮৩)। পরপর দুই ওভারে এই দুজনের বিদায়ে নিশ্চিত হয়ে যায় পাকিস্তানের পরাজয়। ১৬৭ রানে পাকিস্তান হারায় ৭ উইকেট। 

পাকিস্তানের লেজটা মুড়ে দেন মোস্তাফিজ। বাংলাদেশের বিপক্ষে টানা চতুর্থ পরাজয় বরণ করে নিতে হয় পাকিস্তানকে। সর্বশেষ মুখোমুখি লড়াইয়ে ৩ ম্যাচের সিরিজে বাংলাওয়াশ হয়েছিল পাকিস্তান। বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে সোনালি সেই সময়টা যদি আবার ফিরে আসে, তবে ফাইনালেও ভারত সহজে পার পাবে না।

খবরটি পড়া হয়েছে :28বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *