বিয়ানীবাজার সিনিয়র মাদ্রাসায় ২টি নতুন ভবন উদ্ভোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী

লেনিন (বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি):: অদ্য বেলা রোজ রবিবার ১২ টার সময় ১৯৩৫ সালে প্রতিষ্টিত বিয়ানীবাজার সিনিয়র মাদ্রাসায় ২টি নতুন ভবনের উদ্ভোধন করেন  শিক্ষামন্ত্রী  নুরুল ইসলাম নাহিদ। 

এসময় হযরত মাওলানা আবুল হাশিম ও লুৎফুর রহমানের পরিচালনায় একটি উদ্ভোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।  এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী  নুরুল ইসলাম নাহিদ। 

উক্ত অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসাবে আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খাঁন, পৌর মেয়র আব্দুস শুক্কুর, নির্বাহী অফিসার আরিফুর রহমান, থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিব মনিয়া, শিক্ষামন্ত্রীর সহকারী সচিব আউয়াল, প্রিঃ মাওলানা আবদুল্লাহিল বাকি চৌধুরী,আতাউল্লাহ মুয়াজ প্রমুখ।  সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন পৌর মেয়র।

প্রধান অতিথি নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, বিয়ানীবাজার সিনিয়র মাদ্রাসায় ২টি নতুন ভবন নির্মান ইসলামী শিক্ষার আধুনিকায়নে অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে। ইসলামের বিকাশে মাদ্রাসার অবদান অনস্বীকার্য। ৯০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ভবন নির্মান ও ৯ লক্ষ টাকার দ্রব্যাদী প্রদান করা হয়।

শিক্ষামন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য বলেন, ইসলামের আধুনিক শিক্ষায় আলিম থেকে ডাক্তার, ইনঞ্জিয়ার, রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী হতে পারবেন। 

তিনি আর ও বলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খাঁন থেকে নির্বাচনী শিক্ষা অর্জন যেন স্মৃতির অতলে হারিয়ে না যায়। বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির সংমিশ্রনে নতুন প্রজন্ম “দূর্নীতি মুক্ত থেকে” জাতির কল্যানে ন্যায়ের পথে থেকে অগ্রসর হতে পারে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন। শিক্ষামন্ত্রী বলেন ৯৯ সালে স্থাপিত পৌরসভা দূনীতির আবাসস্থলে যেন পরিনত না হয় সে দিকে সকলকে লক্ষ্য রাখার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খাঁন বলেন, তরুন ও তরুনীরা বিপ্লবের পথিক। ইসলামী বিপ্লব ১৯৭৯ ইরান(আয়াতুল্লাহ খামেনী, রুশ বিপ্লব ১৯১৭ (লেনিন), ফরাসী বিপ্লব ১৭৮৯ (নেপলিয়ান) নেতৃত্ব দিয়েছেন তোমাদের মত শিক্ষার্থীরা। তাই তোমাদেরকে বই পড়তে হবে যেন “তলা বিহীন ঝুড়ির দেশের নাগরিক” হিসাবে অপবাদ কেউ  দিতে না পারে।

প্রিন্সিপাল বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর দুটি ভবন উদ্ভোধনে ইসলামী শিক্ষার আলোকবর্তিতার যে স্ফূরন বিকশিত হয়েছে তাঁর জন্য তিনি মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ও মন্ত্রনালয়কে ধন্যবাদ জানান।

বিশেষ অতিথি পৌর মেয়র বলেন, আধুনিক শিক্ষার সংযোজনে ইসলামী শিক্ষার বিকাশে শিক্ষামন্ত্রীর নুরুল ইসলাম নাহিদের অবদানে বাস্তব চিত্র তাঁর সমাপনী ভাষনে তুলে ধরেন এবং পৌরসভাকে আধুনিক ও দূনীতি রাহুর কবল থেকে মুক্ত করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

উক্ত অনুষ্টানে ইসলামী সংগীত পরিবেশন ও নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন আদিরুল রহমান,সুলেমান, আতাউল্লাহ মুয়াজ ও আনসারুল হক, আজহারুল হক, রাসেল, রেদওয়ান, সিদ্দিক,ও সাজ্জাদুল ইসলাম রনি প্রমুখ।

খবরটি পড়া হয়েছে :19বার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *